আমাদের কোন আপডেট মিস না করতে গুগল নিউজে ফলো করতে এখানে ক্লিক করুন

সেই অস্ত্র কবিতার জ্ঞানমূলক প্রশ্ন ও উত্তর


প্রশ্ন-১. 'সেই অস্ত্র' কবিতাটির রচয়িতা কে?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতাটির রচয়িতা আহসান হাবীব।

প্রশ্ন-২. কবি আহসান হাবীব কোথায় জন্মগ্রহণ করেন?
উত্তর: কবি আহসান হাবীব পিরোজপুরের শংকরপাশা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

প্রশ্ন-৩. আহসান হাবীব মূলত কোন ধরনের শিল্পী?
উত্তর: আহসান হাবীব মূলত মানবদরদি শিল্পী ।

প্রশ্ন-৪. কবি আহসান হাবীব কত খ্রিষ্টাব্দে ‘দৈনিক বাংলা’ পত্রিকায় যোগ দেন?
উত্তর: কবি আহসান হাবীব ১৯৬৪ খ্রিষ্টাব্দে ‘দৈনিক বাংলা’ পত্রিকায় যোগ দেন।

প্রশ্ন-৫. কোন ধরনের সাহিত্যে কবি আহসান হাবীবের বিশেষ আগ্রহ ছিল?
উত্তর: উপন্যাস ও শিশুসাহিত্যে কবি আহসান হাবীবের বিশেষ আগ্রহ ছিল।

প্রশ্ন-৬. আহসান হাবীবের মাতার নাম কী?
উত্তর: কবি আহসান হাবীবের মাতার নাম জমিলা খাতুন।

প্রশ্ন-৭. আহসান হাবীব কত সালে কলকাতা থেকে ঢাকা আসেন?
উত্তর: আহসান হাবীব ১৯৫০ সালে কলকাতা থেকে ঢাকা আসেন।

প্রশ্ন-৮. আহসান হাবীব আমৃত্যু কোন পত্রিকার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন?
উত্তর: আহসান হাবীব আমৃত্যু ‘দৈনিক বাংলা' পত্রিকার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

প্রশ্ন-৯. আহসান হাবীবের কবি প্রতিভার মূলসুর কী?
উত্তর: আহসান হাবীবের কবি প্রতিভার মূলসুর এক সুগভীর জীবনঘনিষ্ঠ আশাবাদী চেতনা।

প্রশ্ন-১০. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতাটির গঠনগত বিশেষত্ব কী?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতাটির গঠনগত বিশেষত্ব হলো এর অনাড়ম্বর সহজ গতিময়তা ।

প্রশ্ন-১১. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় পর্বগুলোর বিন্যাস কেমন?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতার পর্বগুলোর বিন্যাস অসম ।

প্রশ্ন-১২. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতাটি কোন ছন্দে রচিত?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতাটি অন্ত্যমিলহীন অক্ষরবৃত্ত ছন্দে রচিত।

প্রশ্ন-১৩, ‘ছায়াহরিণ’ আহসান হাবীবের কী ধরনের রচনা?’
উত্তর: ‘ছায়াহরিণ’ আহসান হাবীবের কাব্যগ্রন্থ।

প্রশ্ন-১৪. আহসান হাবীবের কবিতা লেখার হাতেখড়ি হয় কখন?
উত্তর: আহসান হাবীবের কবিতা লেখার হাতেখড়ি হয় স্কুলজীবনে।

প্রশ্ন-১৫: কোন কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় কবিকে ভাগ্যান্বেষণে কলকাতায় চলে যেতে হয়?
উত্তর: বরিশালের ব্রজমোহন কলেজে অধ্যয়নরত অবস্থায় কবিকে ভাগ্যান্বেষণে কলকাতায় চলে যেতে হয়।

প্রশ্ন-১৬. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কোন নগরীর উল্লেখ রয়েছে?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় ট্রয়নগরীর উল্লেখ রয়েছে।

প্রশ্ন-১৭. প্রাচীন গ্রিসের স্থাপত্যকলায় নন্দিত শহরের নাম কী?
উত্তর: প্রাচীন গ্রিসের স্থাপত্যকলায় নন্দিত শহরের নাম ট্রয়নগরী।

প্রশ্ন-১৮. ট্রয়নগরী কোথায় অবস্থিত?
উত্তর: ট্রয়নগরী প্রাচীন গ্রিসে অবস্থিত।

প্রশ্ন-১৯, ‘সেই অস্ত্র’ কবিতার মাধ্যমে কবি পৃথিবীতে কী ছড়িয়ে দিতে চেয়েছেন?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতার মাধ্যমে কবি পৃথিবীতে ভালোবাসা ছড়িয়ে দিতে চেয়েছেন ।

প্রশ্ন-২০. 'সেই অস্ত্র' কবিতায় কবির আকাঙ্ক্ষা কী?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র' কবিতায় কবির আকাঙ্ক্ষা হলো ভালোবাসা আর শান্তির অস্ত্র দিয়ে সকল মারণাস্ত্রকে পরাভূত করা।

প্রশ্ন-২১. 'অমোঘ অস্ত্র’ অর্থ কী? উত্তর: ‘অমোঘ অস্ত্র' অর্থ হলো অব্যর্থ অস্ত্র।

প্রশ্ন-২২. শান্তিপ্রিয় পৃথিবীবাসীর জন্যে ‘সেই অস্ত্র' কবিতাটি কী?
উত্তর: শান্তিপ্রিয় পৃথিবীবাসীর জন্যে ‘সেই অস্ত্র’ কবিতাটি যেন প্রার্থনাসংগীত।

প্রশ্ন-২৩. 'অবিনাশী’ শব্দের অর্থ কী? উত্তর: ‘অবিনাশী' শব্দের অর্থ হলো শাশ্বত।

প্রশ্ন-২৪, সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে নদী আরও কী হবে?
উত্তর: সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে নদী আরও কল্লোলিত হবে।

প্রশ্ন-২৫, সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে কোথায় আগুন জ্বলবে না?
উত্তর: সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে ফসলের মাঠে আগুন জ্বলবে না।

প্রশ্ন-২৬. কবির সেই অস্ত্র ব্যাপ্ত হলে কোথায় অগ্ন্যুৎপাত হবে না?
উত্তর: কবির সেই অস্ত্র ব্যাপ্ত হলে মানব বসতির বুকে অগ্ন্যুৎপাত হবে না।

প্রশ্ন-২৭. কীসের করালগ্রাসে অনেকেই মানবিকতাশূন্য হয়ে পড়ে?
উত্তর: হিংসা আর স্বার্থপরতার করালগ্রাসে অনেকেই মানবিকতাশূন্য হয়ে পড়ে।

প্রশ্ন-২৮. লক্ষ লক্ষ মানুষকে পঙ্গু-বিকৃত করবে না কী?
উত্তর: লক্ষ লক্ষ মানুষকে পঙ্গু-বিকৃত করবে না মুহূর্তের অগ্ন্যুৎপাত ।

প্রশ্ন-২৯. জাপানের হিরোশিমা-নাগাসাকিতে ঘটে যাওয়া নৃশংসতা কোন বিশ্বযুদ্ধের ফল?
উত্তর: জাপানের হিরোশিমা-নাগাসাকিতে ঘটে যাওয়া নৃশংসতা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ফল।

প্রশ্ন-৩০, ‘সেই অস্ত্র’ উত্তোলিত হলে বার বার কী বিধ্বস্ত হবে না?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ উত্তোলিত হলে বার বার বিধ্বস্ত হবে না ট্রয়নগরী।

প্রশ্ন-৩১. ভালোবাসার অস্ত্র উত্তোলিত হলে অরণ্য কেমন রূপ ধারণ করবে?
উত্তর: ভালোবাসার অস্ত্র উত্তোলিত হলে অরণ্য আরও সবুজ রূপ ধারণ করবে।

প্রশ্ন-৩২. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কবি কী ফিরে পেতে চান?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কবি হুতবোধকে ফিরে পেতে চান ।

প্রশ্ন-৩৩. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কবি আহসান হাবীবের একমাত্র প্রত্যাশা কী?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কবি আহসান হাবীবের একমাত্র প্রত্যাশা। হলো মানবসমাজে ভালোবাসা ফিরে পাওয়া।

প্রশ্ন-৩৪. ‘সেই অস্ত্র' কবিতাটি কাদের জন্যে এক চিরায়ত প্রার্থনাসংগীত?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র' কবিতাটি শান্তিপ্রিয় পৃথিবীবাসীর জন্যে এক চিরায়ত প্রার্থনাসংগীত ।

প্রশ্ন-৩৫. সর্বত্র কী করলে পৃথিবী সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যাবে?
উত্তর: সর্বত্র শান্তি বিরাজ করলে পৃথিবী সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যাবে।

প্রশ্ন-৩৬, আধিপত্যের লোভকে নিশ্চিহ্ন করে দেয় কোন অস্ত্র?
উত্তর: আধিপত্যের লোভকে নিশ্চিহ্ন করে দেয় অবিনাশী অস্ত্র।

প্রশ্ন-৩৭. 'সেই অস্ত্র’ মানুষকে বিচ্ছিন্ন না করে কী করে?
উত্তর: 'সেই অস্ত্র' মানুষকে বিচ্ছিন্ন না করে সমাবিষ্ট করে।

প্রশ্ন-৩৮. কবির সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে বার বার কী বিধ্বস্ত হবে না?
উত্তর: কবির সেই অস্ত্র উত্তোলিত হলে বার বার ট্রয়নগরী বিধ্বস্ত হবে না।

প্রশ্ন-৩৯. ভালোবাসা কীসের লোভকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়?
উত্তর: ভালোবাসা আধিপত্যের লোভকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়।

প্রশ্ন-৪০. কবি 'সেই অস্ত্র' কবিতায় সেই অস্ত্রকে কী করতে বলেছেন?
উত্তর: কবি ‘সেই অস্ত্র' কবিতায় সেই অস্ত্রকে পৃথিবীতে ব্যাপ্ত করতে বলেছেন।

প্রশ্ন-৪১. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কোন আকাশের কথা উল্লেখ আছে?
উত্তর: 'সেই অস্ত্র' কবিতায় নক্ষত্রখচিত আকাশের কথা উল্লেখ আছে।

প্রশ্ন-৪২. কীসের প্রতি কবি আহসান হাবীবের ছিল অকপট সংবেদনশীলতা?
উত্তর: দেশ ও জনতার প্রতি কবি আহসান হাবীবের ছিল, অকপট সংবেদনশীলতা।

প্রশ্ন-৪৩. কবি আহসান হাবীবের একটি উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থের নাম লেখো।
উত্তর: কবি আহসান হাবীবের একটি উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ হলো ‘রাত্রিশেষ'।

প্রশ্ন-৪৪. ভালোবাসা মানুষকে কী বাতলে দেয় বলে কবি আহসান হাবীবের বিশ্বাস?
উত্তর: ভালোবাসা মানুষকে সকল অমঙ্গল থেকে পরিত্রাণের পথ বাতলে দেয় বলে কবি আহসান হাবীবের বিশ্বাস ।

প্রশ্ন-৪৫. ‘সেই অস্ত্ৰ’ কবিতায় ফসলের মাঠে আগুন দেয় কেন?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র' কবিতায় ফসলের মাঠে আগুন দেয় শত্রুতাবশত।

প্রশ্ন-৪৬. ‘সেই অস্ত্ৰ’ কবিতায় ভালোবাসা দিয়ে কীসের অভিমানকে বার বার পরাজিত করা যায়?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ করিতায় ভালোবাসা দিয়ে জাত্যভিমানকে বার বার পরাজিত করা যায়।

প্রশ্ন-৪৭. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় ট্রয়নগরী বার বার ধ্বংস হয়েছে কেন?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় মানুষের হিংসা, বিদ্বেষ, ঈর্ষা আর দম্ভের শিকার হয়ে ট্রয়নগরী বার বার ধ্বংস হয়েছে।

প্রশ্ন-৪৮. ‘সেই অস্ত্র' কবিতাটি কোন কাব্যগ্রন্থ থেকে সংকলন করা হয়েছে?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতাটি আহসান হাবীবের 'বিদীর্ণ দর্পণে মুখ' কাব্যগ্রন্থ থেকে সংকলন করা হয়েছে।

প্রশ্ন-৪৯. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় বর্ণিত নগরটির নাম কী?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় বর্ণিত নগরটির নাম ট্রয়নগরী ।

প্রশ্ন-৫০. জাত্যভিমান কী?
উত্তর: নিজ জাতিকে সর্বশ্রেষ্ঠ জ্ঞান করার অহংকারী মনোভাবই জাত্যভিমান।

প্রশ্ন-৫১, ‘অমোঘ অনন্য অস্ত্র' কী?
উত্তর: অমোঘ অনন্য অস্ত্র হলো ভালোবাসা।

প্রশ্ন-৫২. ‘অমোঘ’ শব্দের অর্থ কী?
উত্তর: ‘অমোঘ’ শব্দের অর্থ – অবশ্যম্ভাবী বা সার্থক।

প্রশ্ন-৫৩. কবির অস্ত্র ব্যাপ্ত হলে নক্ষত্রখচিত আকাশ থেকে কী ঝরবে না?
উত্তর: কবির অস্ত্র ব্যাপ্ত হলে নক্ষত্রখচিত আকাশ থেকে আগুন ঝরবে না।

প্রশ্ন-৫৪. ভালোবাসার অস্ত্র উত্তোলিত হলে অরণ্য কেমন হবে?
উত্তর: ভালোবাসার অস্ত্র উত্তোলিত হলে অরণ্য আরও সবুজ হবে।

প্রশ্ন-৫৫. আহসান হাবীব কত সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পান?
উত্তর: আহসান হাবীব ১৯৬১ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পান।

প্রশ্ন-৫৬. জাত্যভিমানকে বার বার পরাজিত করতে কী প্রয়োজন?
উত্তর: জাত্যভিমান বার বার পরাজিত করতে ভালোবাসা প্রয়োজন ।

প্রশ্ন-৫৭. ‘সেই অস্ত্র' কবিতায় কে অবিনাশী অস্ত্রের প্রত্যাশী?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র' কবিতায় কবি আহসান হাবীব অবিনাশী অস্ত্রের প্রত্যাশী।

প্রশ্ন-৫৮. আহসান হাবীব কত সালে জন্মগ্রহণ করেন?
উত্তর: আহসান হাবীব ১৯১৭ সালে জন্মগ্রহণ করেন।

প্রশ্ন-৫৯. আহসান হাবীব ১৯৬৪ সালে কোন পত্রিকায় যোগ দেন?
উত্তর: আহসান হাবীব ১৯৬৪ সালে দৈনিক বাংলা’ পত্রিকায় যোগ দেন।

প্রশ্ন-৬০. ‘সেই অস্ত্ৰ’ কবিতায় ভালোবাসার অস্ত্র ফিরিয়ে দেওয়া হলে পৃথিবীর যাবতীয় অস্ত্র কী হবে?
উত্তর: ভালোবাসার অস্ত্র ফিরিয়ে দেওয়া হলে পৃথিবীর যাবতীয় অস্ত্র আনত হবে।

প্রশ্ন-৬১. ‘সেই অস্ত্র' কবিতায় কোথা থেকে আগুন ঝরবে না?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় নক্ষত্র খচিত আকাশ থেকে আগুন ঝরবে না।

প্রশ্ন-৬২. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কী মানুষকে সমাবিষ্ট করে?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় ভালোবাসা মানুষকে সমাবিষ্ট করে।

প্রশ্ন-৬৩. কোন অস্ত্র উত্তোলিত হলে পৃথিবীর যাবতীয় অস্ত্র আনত হবে?
উত্তর: ভালোবাসা আর শান্তির অস্ত্র উত্তোলিত হলে পৃথিবীর যাবতীয় অস্ত্র আনত হবে।

প্রশ্ন-৬৪. কোন অস্ত্রকে পৃথিবীতে ব্যাপ্ত করার কথা বলা হয়েছে?
উত্তর: ভালোবাসার অস্ত্রকে পৃথিবীতে ব্যাপ্ত করার কথা বলা হয়েছে।

প্রশ্ন-৬৫, আহসান হাবীবের মৃত্যু হয় কত সালে?
উত্তর: আহসান হাবীবের মৃত্যু হয় ১৯৮৫ সালে।

প্রশ্ন-৬৬. কোন অস্ত্র উত্তোলিত হলে গৃহস্থালি খাঁ খাঁ করবে না?
উত্তর: ভালোবাসা নামক অস্ত্র উত্তোলিত হলে গৃহস্থালি খাঁ খাঁ করবে না।

প্রশ্ন-৬৭. ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় কোন নগরী বিধ্বস্ত হওয়ার কথা উল্লেখ আছে?
উত্তর: ‘সেই অস্ত্র’ কবিতায় ট্রয়নগরী বিধ্বস্ত হওয়ার কথা উল্লেখ আছে ।

প্রশ্ন-৬৮. 'সেই অস্ত্ৰ’ কবিতায় আমাদের চেতনাজুড়ে কারা আর্তনাদ করে?
উত্তর: আমাদের চেতনাজুড়ে লক্ষ লক্ষ পঙ্গু বিকৃত মানুষ আর্তনাদ করে।

প্রশ্ন-৬৯. কবি যে অস্ত্র বার বার প্রত্যাশা করেছেন সে অস্ত্রের নাম কী?
উত্তর: কবি যে অস্ত্র বার বার প্রত্যাশা করেছেন, সে অস্ত্রের নাম ভালোবাসা।

প্রশ্ন-৭০. আহসান হাবীব কত সালে একুশে পদক পান?
উত্তর: আহসান হাবীব ১৯৭৮ সালে একুশে পদক পান।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন